বিশ্ব বাংলা গেটের কাছে এবার তৈরি হলো NKDA-র নিজস্ব কমিউনিটি সেন্টার

নিউটাউনে এনকেডিএ এর এবার নিজস্ব কমিউনিটি সেন্টার ওয়ান তৈরি হলো বিশ্ব বাংলা গেটের কাছে। যার শুভ উদ্বোধন হলো আজ। মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য প্রদীপ জ্বালিয়ে কমিউনিটি সেন্টারের শুভ উদ্বোধন করেন। এই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এনকেডিএ চেয়ারম্যান দেবাশীষ সেন সহ এই দফতরের সমস্ত আধিকারিকরা। পয়লা ডিসেম্বর থেকে চালু হবে এই কমিউনিটি হল। ইতিমধ্যেই ২রা ডিসেম্বরের জন্য একটি হল বুক হয়েছে।

আরো পড়ুন-বিজেপি সরকার নিয়ে এবার বিস্ফোরক ত্রিপুরা বিজেপির বিধায়ক সুদীপ রায় বর্মণ

নিউটাউনবাসীদের দীর্ঘদিনের চাহিদা যেকোনো সামাজিক অনুষ্ঠানের জন্য একটি কমিউনিটি হলের সেই কারণে এবার এনকেডিএ নিজস্ব কমিউনিটি হল তৈরি করা হলো। সুন্দর পরিবেশে মধ্যে একবারে নারকেল বাগানের কাছেই করা হয়েছে। মানুষজনের আসার সুবিধার্থে। প্রতিটি তলে ৬ হাজার স্কোয়ার ফিট মতো জায়গা আছে। দৈনিক ৬০ হাজার টাকা ট্যাক্স আলাদা ভাড়া দেওয়া হবে। এই কমিউনিটি হলের মধ্যে একটি ডায়াস থাকছে, দুটি এটার্চ রুম, বাথরুম ও কিচেন থাকছে। এই রুম গুলি নন এসি রাখা হয়েছে। কারো প্রয়োজন হলে আলাদা করে এসি লাগাতে পারবে। ছাদ ও ভাড়া করে সেখানে অনুষ্ঠান করার সুযোগ থাকবে। এই কমিউনিটি হলেই ম্যানেজার থাকবে সেখান থেকেই হল বুক করতে পারবেন। এক তলাতেও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান গুলোকে প্রাধান্য দেওয়া হবে।

আরো পড়ুন-স্ত্রীর জন্মদিন ভুলে গেলে হতে পারে জেল

প্রতিবছর শীতকাল এলেই নিউটাউনে দেখা যায় ফাঁকা জায়গায় যেসব ঝোপঝাঁড় জঙ্গল রয়েছে সেখানে কেউ বা কারা অসাধু ব্যক্তি আগুন ধরিয়ে দেয়। সেই আগুনের কালো ধোঁয়াতে দূষিত হয় নিউটাউনের বাতাস। দমকলকে জানালেও সেই আগুন নেভাতে অনীহা প্রকাশ করে দমকল কর্মীরা এমনটাই অভিযোগ এনকেডিএ চেয়ারম্যান দেবাশীষ সেনের। তাই এবার এনকেডিএ এর পক্ষ থেকে বিশেষ উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। চালু করা হয়েছে হেল্পলাইন নম্বর ও বাড়ানো হয়েছে নজরদারি।

আরো পড়ুন-ডাকাতির উদ্দেশ্যে জড়ো হওয়া ৩ দূষ্কৃতীকে আগ্নেয়াস্ত্র সহ পাকড়াও করে শাসন থানার পুলিশ

দেবাশীষ সেন জানান,”আমরা প্রচুর চেষ্টা করছি। গত বছর থেকে কেউ বা কারা আমাদের অজ্ঞাতে পুরানো আবর্জনা বা ঘাস পরিষ্কার করার জন্য অথবা সাপের ভয়ের জন্য তারা পুড়িয়ে থাকে। এটা পরিবেশের ক্ষেত্রে অত্যন্ত খারাপ।  আমরা বারবার বারণ করেছি। মাইকিং করছি। নোটিশ দিচ্ছি। আবাসিকদের বলছি এরকম কিছু দেখলে আমাদের জানান। ড্রোন দিয়ে নজরদারি চালানো হচ্ছে। এর পাশাপাশি একটি জলের গাড়ি তৈরি করা হয়েছে তাতে পাম্প বসানো হয়েছে। কারন ফায়ার ব্রিগেডের কাছ থেকে সবসময় সহযোগিতা পাওয়া যায় না। তারা বলতে থাকেন মানুষের কোনো ক্ষতি নয়। ঘাস পড়াচ্ছে সেটা নেভানো কি আমাদের কাজের মধ্যে পড়ে এরকম একটা প্রশ্ন অনেক সময় উঠেছে। কিন্তু বায়ু দূষণ টা তো হয়েই যাচ্ছে। সেই জন্য এনকেডিএ থেকে জলের গাড়ির ব্যবস্থা করেছি।  খবর পেলেই সেই গাড়ি ছুটে যাচ্ছে। গোড়াতেই আটকে দিতে হবে নাহলে সেটা ছড়িয়ে যাচ্ছে। নিউটাউনের যে হেল্পলাইন নম্বর আছে। তার নম্বর হল-18001037652″

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *