কল সেন্টারে হাওয়ালা যোগ!সেক্টর ফাইভের ভুয়ো কল সেন্টারে থেকে ৬ মহিলা সহ ২১ জন গ্রেফতার

কল সেন্টারে হাওয়ালা যোগ।সেক্টর ফাইভের ভুয়ো কল সেন্টারে হানা দিয়ে ৬ মহিলা সহ ২১ জনকে গ্রেফতার করলো বিধাননগর সাইবার ক্রাইম থানার পুলিশ। একাধিক জায়গায় তল্লাশি চালিয়ে উদ্ধার লক্ষাধিক টাকা এবং গুরুত্বপূর্ণ নথি।

আরো পড়ুন-ফিরহাদ হাকিমের সঙ্গে দিদির যোগাযোগই তো ভাইপো কেটে দিচ্ছে:ববিকে পাল্টা সুকান্ত

পুলিশ সূত্রে খবর, সল্টলেকের সেক্টর ফাইভের ইপি ব্লকের গ্লবসিন ক্রিস্টাল টাওয়ার বিল্ডিংয়ের ছয় তলায় রেনেসাঁ ইনফো ওয়েব প্রাইভেট লিমিটেড নামের একটি ভুয়ো কল সেন্টার চালু করেছিল ইকো পার্ক এলাকার বাসিন্দা পরাগ কুন্ডু। সেই ভুয়ো কল সেন্টার থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের ফোন করতো প্রতারকরা। তাদের মার্কিন টেলিকম সংস্থার কর্মী হিসাবে পরিচয় দিয়ে ইন্টারনেট স্পিড বৃদ্ধি এবং ম্যালওয়্যার অ্যাটাক থেকে সুরক্ষার জন্যে অ্যান্টিভাইরাস সাপোর্ট সংক্রান্ত বিষয় প্রতিশ্রুতি দেওয়া হতো। সেই প্রতিশ্রুতি দিয়ে বিদেশি নাগরিকদের কাছ থেকে বিদেশি মুদ্রায় লক্ষাধিক টাকা প্রতারণা করতো এই চক্র। সূত্রের খবর এই ভাবে কয়েক কোটি টাকা প্রতারণা করে এই চক্র। অবশেষে বিধাননগর সাইবার ক্রাইম থানার পুলিশ সূত্র মারফত খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার রাতে হানা দেয় সেক্টর ফাইভের ভুয়ো কল সেন্টারে। সেখান থেকে সংস্থার দুই ডিরেক্টর পরাগ কুন্ডু এবং সঞ্জয় চন্দ্র দাস সহ ২১ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

আরো পড়ুন-ভাটপাড়া পুর কর্তৃপক্ষের উচ্ছেদের নোটিশে ক্ষুব্ধ দোকানদারেরা

পুলিশ সূত্রে খবর এই চক্রের আড়ালে রয়েছে হাওয়ালা যোগ। এদের জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ জানতে পারে এই চক্র বিদেশি নাগরিকদের থেকে প্রতারণা করার সময় তাদের মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি ব্যাংক একাউন্টে টাকা জমা করতে বলতো। পরবর্তীতে সেই টাকা হাওয়ালা মাধ্যমে দিল্লির এক ব্যবসায়ীর কাছে পৌঁছাত। সেখান থেকে টাকা কলকাতার এক ব্যবসায়ীর মাধ্যমে এসে পৌঁছত পরাগের কাছে।

আরো পড়ুন-

পুলিশ সূত্রে খবর, এই অফিস থেকে ২ লক্ষ ১৫ হাজার টাকা এবং পরাগের বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে ৩ লক্ষ ৬৭ হাজার টাকা নগদ উদ্ধার করে পুলিশ। এছাড়াও ৪২টি কম্পিউটার, ২৩টি স্মার্ট ফোন, ২৬টি ডেবিট কার্ড, ৩টি হার্ড ডিস্ক, ১৬টি চেক বুক, ৪টি ব্যাংক পাসবুক, ৪টি প্যান কার্ড, দুটি রাউটার সহ একাধিক ভিকটিম ডেটা উদ্ধার করেছে বিধাননগর সাইবার ক্রাইম থানার পুলিশ। আজ অভিযুক্তদের বিধাননগর আদালতে তোলা হবে। মূল অভিযুক্তদের নিজেদের হেফাজতে নেওয়ার আবেদন জানাবে বলে পুলিশ সূত্রে খবর। এই চক্রের সঙ্গে জড়িতদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে বিধাননগর সাইবার ক্রাইম থানার পুলিশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *